জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে বসত ঘর পুড়ে ছাঁই, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি 

প্রকাশিত: ১:১৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০২১

জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে বসত ঘর পুড়ে ছাঁই, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি 

জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে বসত ঘর পুড়ে ছাঁই, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

 

 

 

 

 

হুমায়ূন কবীর ফরীদি, জগন্নাথপুর প্রতিনিধিঃ

 

 

 

 

জগন্নাথপুর এর পল্লীতে রাতের আঁধারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ঝুপড়ীর মতো বসত ঘর পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ৭০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে এই ঘটনা পরিকল্পিত ভাবে ঘটানো হতে পারে বলে স্থানীয়রা ধারণা করছেন ।

ঘটনার বিবরণে স্থানীয় সুত্রে ৯ ই অক্টোবর রোজ শনিবার সরেজমিনে জানাযায়, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলাধীন কলকলিয়া ইউনিয়ন এর অন্তর্ভুক্ত তেলিকোনা গ্রাম নিবাসী মৃত বারুল্লা মিয়ার ছেলে মোঃ আবুল মিয়া (৩৫) এর ঝুপড়ীর মতো বসত ঘরে গতকাল ৮ ই অক্টোবর দিবাগত রাত প্রায় ২ঘটিকার সময় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ সময় আগুনের লেলিহান শিখা দেখে আবুল মিয়ার পরিবার এর আর্তচিৎকারে আবুল মিয়া ও একই গ্রাম নিবাসী নাজিম উদ্দীন অন্য বাড়ী থেকে এসে আশ-পাশের লোকজন এর সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণ করেন। ততক্ষণে ঝুপড়ী ঘরটি পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ৭০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আরো জানাযায়, জলমহাল ইজারা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে এই গ্রাম নিবাসী মাতাব আলী ও সামছুল হক পক্ষের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবৎ মামলা-মোকদ্দমা সহ সংঘর্ষে ঘটনা ঘটছে। এরই জের ধরে প্রতিপক্ষ মাতাব আলী গং ব্যক্তিবর্গকে ফাঁসাতে সামছুল হক পক্ষের আবুল মিয়া(৩৫) নিজ বসত ঘরে পরিকল্পিত ভাবে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্থানীয়রা ধারণা করছেন।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত আবুল মিয়া বলেন,জলমহাল নিয়ে গ্রামে বিরোধ চলছে। দুষ্কৃতকারী মাতাব আলী গং ব্যক্তিগন আমার ঘর আগুনে পুড়ে ছাঁই করে দিয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, যারা আগুন লাগিয়েছে তাদেরকে আমি চিনেছি। আমি থানায় মামলা করব। আমি নিরীহ দিনমজুর মানুষ। এই ঘটনার সুবিচার প্রার্থী।

এ ব্যাপারে একান্ত আলাপকালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তেলিকোনা গ্রাম সহ আশপাশ গ্রাম এর একাধিক ব্যক্তি তাদের মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, উপজেলার কামারখালী নদীর ১ম খন্ড উন্মুক্ত জলমহাল হতে টোকেন রেটের মাধ্যমে মৎস্য আহরণকে কেন্দ্র করে তেলিকোনা গ্রাম নিবাসী মাতাব আলী গং ও একই গ্রাম নিবাসী সামছুল হক গং ব্যক্তিদের মধ্যে ঝগড়া প্রসাদ লেগেই আছে। এরই জের ধরে গতকাল ৮ ই অক্টোবর বাদজুমা উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এই সংঘর্ষে আহত মাতাব আলী পক্ষের শিশু সহ তিন জন জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। এইদিন দিবাগত রাতে ঘর জ্বালানোর ঘটনা ঘটেছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই ঘর জ্বালানোর ঘটনা ঘটানো হতে পারে। বিধায় এই ব্যাপারে সুস্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসী।

এব্যাপারে আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে উপস্থিত থাকা তেলিকোনা গ্রাম নিবাসী নাজিম উদ্দীন বলেন , আমি ও আবুল মিয়া সহ বেশ কয়েকজন গতরাত (৮ অক্টোবর) জলমহাল সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আমার বাড়ীতে আলোচনায় বসাছিলাম। এমন সময় আবুল মিয়ার বাড়ীতে আগুন লাগার সংবাদ পেয়ে সাথে দৌড়ে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ করার কাজে নিয়োজিত হই এবং পাড়াপ্রতিবেশির সহযোগিতায় আগুন নিভাতে সক্ষম হই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, কেবা কাহারা অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে বলতে পারব না। আবুল মিয়ার স্ত্রী বলতে পারবেন।

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, অভিযোগ পাইনি।অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

হাবিবা আক্তার জেছি //

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

%d bloggers like this: