জগন্নাথপুরে রাতের আধাঁরে অতর্কিত হামলায় ১ জন আহত

প্রকাশিত: ১২:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২০

জগন্নাথপুরে রাতের আধাঁরে অতর্কিত হামলায় ১ জন আহত

দৈনিক সিলেটের দিকে
মোঃ হুমায়ুন কবীর ফরীদি, জগন্নাথপুর প্রতিনিধিঃ

,
জগন্নাথপুরের পল্লীতে রাতের আধাঁরে প্রতি পক্ষের অতর্কিত হামলায় দিলু বক্স (৩৩)) নামক ১ যুবক গুরুতর আহত হয়ে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
স্থানীয় ও থানা সুত্রে জানাযায়, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়ন এর নাদামপুর গ্রাম নিবাসী মৃত মোঃ খতিব উল্লাহর ছেলে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স ও একই গ্রাম নিবাসী মৃত মোঃ আঃ খালিক এর ছেলে কলকলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার মোঃ ইকবাল হোসেন সাজাদ এর মধ্যে স্থানীয় একটি জলমহাল সহ গ্রামীণ বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে দীর্ঘ দিন বিরোধ চলে আসছে এবং মামলা – মোকদ্দমা চলছে।
গতকাল ১৩ ই অক্টোবর দিবাগত রাতে উপজেলা সদর জগন্নাথপুর বাজার থেকে কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স মোটরসাইকেল যোগে নিজ বাড়ী ফেরার পথে রাত প্রায় ১০ ঘটিকার সময় গ্রামের ভিতর মনু মিয়ার দোকানের সামনে পৌঁছা মাত্রই পূর্ব হতে ওতপেতে থাকা প্রতিপক্ষ ইউপি সদস্য মোঃ ইকবাল হোসেন সাজাদ(৪০) , সেলিম মিয়া (৩২),আব্দাল মিয়া(৩০)জাক্কার মিয়া(৩৫),মনু মিয়া(৩০),মিটু মিয়া(২৮)আশিক মিয়া(৪০) ও তফজ্জুল হোসেন (৩৫) সহ গং ব্যাক্তিবর্গ দেশীয় অস্ত্র – স্বস্ত্র দিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স (৩৩) কে গুরুতর আহত করে। তার আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন সহ আত্মীয় স্বজনরা ছুটে আসলেও ততক্ষণে দুষ্কৃতকারী হামলাকারীরা কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স (৩৩) এর মোটরসাইকেল, মোবাইল সেট ও হাতের স্বর্ণের ব্রেসলেট নিয়ে পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক ভাবে আত্বীয় স্বজনরা দিলু বক্সকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। আহতের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেটে রেফার করেন। সে বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স এর বাম পাঁজরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে , ডান হাতের কনুই ও পিঠে হাড় ভাঙা জখম থাকার পাশাপাশি সারা শরীরে নিফুলা জখম রয়েছে।
এ ব্যাপারে গুরুতর আহত কাওছার আহমদ ওরফে দিলু বক্স বলেন , স্থানীয় একটি জলমহাল ও গ্রামীণ বিষয়াদি নিয়ে সাজাদ মেম্বার এর সাথে আমার বিরোধ চলে আসছে। উপজেলা সদর জগন্নাথপুর বাজার থেকে বাড়ী ফেরার পথে রাতের অন্ধকারে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে সাজাদ মেম্বার ও তার লোকজন গ্রামের রাস্তার মনুর দোকান এর সামনে অতর্কিত হামলা চালিয়ে রামদা ও কিরিস দিয়ে কুপিয়ে আমাকে গুরুতর আহত করে আমার মোটরসাইকেল, মোবাইল সেট ও হাতের স্বর্ণের ব্রেসলেট নিয়ে গেছে । জগন্নাথপুর এসআই রফিক দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এ ব্যাপার জানতে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ইকবাল হোসেন সাজাদ এর মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিয়েও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী জগন্নাথপুর থানার এসআই রফিক বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।এব্যাপারে থানায় এখনো কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।
জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ব্যাপারে থানায় কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

%d bloggers like this: