দিরাই পৌরনির্বাচন “মোশাররফ মিয়া ও বিশ্বজিৎ রায়ের অস্থিত্বের লড়াই”

প্রকাশিত: ৫:২৮ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৯, ২০২০

দিরাই পৌরনির্বাচন “মোশাররফ মিয়া ও বিশ্বজিৎ রায়ের অস্থিত্বের লড়াই”

জাকারিয়া হোসেন জোসেফঃ

শীতের তীব্রতার মাঝেও জমে উঠেছে দিরাই পৌরসভা নির্বাচন। বড় দুই দলের প্রার্থীর প্রচার প্রচারনা আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রচারণায় চারদিকে নির্বাচনী হাওয়া গরম দিরাই পৌরশহরে। চায়ের দোকান থেকে পাড়া মহল্লায় প্রতিজন প্রার্থীর পক্ষে চলছে প্রচার প্রচারনার সবরখম কাজ। এই শীতের প্রতিমুহুর্তে বসে নেই ৮ মেয়র প্রার্থীর কেউ।

দিরাইয়ের সাধারন জনগন বলছে এবারের নির্বাচন মোশাররফ ও বিশ্বজিৎ অস্থিত্বের লড়াই, কারন হিসাবে মোশাররফ মিয়ার দলীয় প্রতিকের বাইরে নির্বাচন এবং বিশ্বজিৎ রায়ের ভাই প্রদিপ রায়ের উপজেলায় হার কে মনে করেন দুই পক্ষের জন্যেই এবারের নির্বাচন খুব গুরুত্বপুর্ন।

ওপর দিকে বি এন পির প্রার্থীর জন্য দলীয় কুন্দল ও শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের আগের দিনের দিকে চেয়ে আছেন জনগন। অনেক সচেতন ভোটার বলছেন দিরাইয়ের নির্বাচন ২৭ শে ডিসেম্বর রাতেই বলা যাবে , কারন এক দিনের ব্যবধানে আমাদের এখানে নির্বাচনের অনেক কিছুই বদলে যায়।

২৮ শে ডিসেম্বরের নির্বাচনে নয়টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন এবং ১৩ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মেয়র প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন ৮ জন, আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের বিশ্বজিৎ রায়, বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের অ্যাডভোকেট ইকবাল হোসেন চৌধুরী, জমিয়ত মনোনীত খেজুর গাছ প্রতীকের হাফিজ মাওলানা লোকমান, জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের অনন্ত মল্লিক, সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জগ প্রতীকে উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র মোঃ মোশারফ মিয়া, চামচ প্রতীকে বিএনপি নেতা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কায়ূম, হেলমেট প্রতীকে আ.লীগ নেতা শফিকুল ইসলাম শফিক, মোবাইল প্রতীকে মোঃ রশিদ মিয়া।

উল্লেখ্য: দিরাই উপজেলা সদরের ১৭ টি গ্রাম নিয়ে পৌরসভা গঠিত হয়। পৌরসভায় বর্তমান ভোটার ২১ হাজার ৩ শ ৭৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১০ হাজার ৫৫২ নারী ১০ হাজার ৮২৭।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

%d bloggers like this: