সিলেটে চাঙা রওশনপন্থিরা পর্যবেক্ষণে কাদের অনুসারীরা

প্রকাশিত: ১:১৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২২

সিলেটে চাঙা রওশনপন্থিরা পর্যবেক্ষণে কাদের অনুসারীরা

সিলেটে হঠাৎ করে চাঙা হয়ে উঠেছেন জাতীয় পার্টিতে রওশন এরশাদপন্থি হিসেবে পরিচিত নেতা-কর্মীরা। আগামী ২৬ নভেম্বর রওশন এরশাদের ডাকা কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে ঘিরে এই চাঙাভাব দেখা দিয়েছে। এত দিন যারা দলের মধ্যে কোণঠাসা ছিলেন, তারা রওশনের ডাকে সম্মেলন সফলে সিলেটে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। সিলেট থেকে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী নিয়ে তারা যেতে চান সম্মেলনে।

সম্মেলন সফল ও দলের প্রতি তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের আস্থা ফেরাতে ইতোমধ্যে কেন্দ্র থেকে সিলেট বিভাগীয় প্রস্তুতি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় নেতারাও সিলেট এসে সভা করে দিকনির্দেশনা দিয়ে গেছেন। তবে দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদের অনুসারীরা রওশনের ডাকা সম্মেলনকে ঘিরে সৃষ্ট অস্বস্তিকর পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। একসময় সিলেটকে বলা হতো জাতীয় পার্টির দ্বিতীয় দুর্গ।

রংপুরের পর সিলেটেই ছিল জাতীয় পার্টির বড় ভোটব্যাংক। কিন্তু নেতৃত্ব নির্বাচনে  স্বেচ্ছাচারিতা, সুবিধাভোগীদের অতিমূল্যায়ন, ত্যাগীদের কোণঠাসা করে রাখাসহ নানা কারণে সিলেটে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা ভেঙে পড়ে। বিশেষ করে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীরা কোণঠাসা হয়ে পড়ায় নেতা-কর্মীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। এদিকে আগামী ২৬ নভেম্বর পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদের ডাকা সম্মেলনকে ঘিরে জাতীয় পার্টির দ্বিতীয় দুর্গ সিলেটের ঝিমিয়ে পড়া নেতা-কর্মীদের মাঝে চাঙাভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে।

সম্মেলন সফলে গত ৪ অক্টোবর কেন্দ্র থেকে ‘সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি’ গঠন করে দেওয়া হয়। ২৪ সদস্যের কমিটিতে সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইশরাকুল হোসেন শামীমকে আহ্বায়ক ও মহিবুল কাদির চৌধুরী পিন্টুকে সদস্য সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়। গত ৭ অক্টোবর কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল এসে বিভাগীয় প্রস্তুতি কমিটির সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে বিভাগীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটিকে চার জেলা ও সব উপজেলা কমিটি গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়। কেন্দ্রীয় নির্দেশনার পর সিলেটে রওশনপন্থি নেতা-কর্মীরা সম্মেলনে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী নিয়ে যোগদানের প্রস্তুতি শুরু করেন।এতে তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মাঝে চাঙাভাব দেখা দেয়। তবে রওশনপন্থিরা সম্মেলনকে ঘিরে বিভিন্ন কর্মকা- চালিয়ে গেলেও নীরব রয়েছেন জি এম কাদের অনুসারীরা। দলের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, সম্মেলনকে ঘিরে রওশন এরশাদকে দল থেকে বহিষ্কার করতে পারেন পার্টি প্রধান জি এম কাদের।

অথবা শেষ পর্যন্ত রওশনও সম্মেলন স্থগিত করতে পারেন। এ ছাড়া আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি কোন জোটে যাচ্ছে, নেতৃত্ব কে দেবেন- এসব নিয়েও তারা হিসাব-নিকাশ কষছেন। শেষ পর্যন্ত সম্মেলন সফল হতে যাচ্ছে দেখলে জি এম কাদের অনুসারীদের বড় একটি অংশ রওশনপন্থিদের সঙ্গে যোগ দিতে পারেন।

সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির মুখপাত্র মুজিবুর রহমান ডালিম জানান, নেতৃত্ব সংকট, নেতাদের স্বেচ্ছাচারিতা এবং কেন্দ্র থেকে বিভিন্ন সময় বাণিজ্যিক কমিটি দেওয়ায় সিলেটে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা দুর্বল হয়ে পড়েছে। অবমূল্যায়নের কারণে পার্টির ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীরা রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় রওশন এরশাদের ডাকা কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে ঘিরে নেতা-কর্মীদের মাঝে প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। আগামী ২৬ নভেম্বর সম্মেলনে সিলেট থেকে অন্তত ১০০টি বাসে করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী যোগদান করবেন। সম্মেলনের পর সিলেট জাতীয় পার্টিকেও ঢেলে সাজানো হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

%d bloggers like this: